পাঁচ ফোড়ন
শেষ_দেখা!
Posted on 30 Mar, 2021

#গল্পশেষ_দেখা! স্টেশনের বেঞ্চে বসে ছেলে আর মেয়েটা প্রায় এক ঘণ্টার কথোপকথন শেষ করল! ছেলেটা বলছিল কম। শুধু শুনছিলো। আর যদিও বা দু'একটা কথা বলছিলো, তা শুনে সাথে সাথেই মেয়েটাকে বারবার উত্তেজিত হয়ে যেতে দেখছিলাম। খেয়াল করে দেখলাম, ছেলেটা কথাগুলো যত আস্তে বলছে. মেয়েটা ঠিক তার উলটো! সে আরো বেশী উচ্চস্বরে বলতেছে। ছেলেটা কিছুক্ষণ পর পর হাত দিয়ে দিয়ে চোখ মুচ্ছিলো। অথচ, মেয়েটা নির্বিকার! তার মত করে বলেই যাচ্ছে। আরো কিছুটা সময় পর! মেয়েটি উঠে দাঁড়িয়ে বলল, আমার ট্রেনের সময় হয়ে গেছে! যাচ্ছি আমি। ভালো থেকো তুমি। ছেলেটা কিছু বলতে যাচ্ছিল। কিন্তু, পারল না। ছলছল চোখে তাকিয়ে আছে মেয়েটার চোখের দিকে। হয়তো, ছেলেটা এ চোখেই একদিন তার প্রতি তীব্র ভালোবাসা দেখেছিল। কিংবা, তাকে পাবার আসমুদ্র তেষ্টা! অথচ, আজ সে চোখেই খুঁজে পাচ্ছে তার প্রতি বিরক্তি, ক্ষোভ কিংবা প্রচণ্ড ঘৃণা। মেয়েটা ব্যাগ কাধে নিয়ে ঘুরে দাঁড়ালো। এক পা এগুতেই ছেলেটা পিছন থেকে তার হাত ধরে ফেলল। মেয়েটা কিছু মুহুর্ত থমকে দাঁড়াতে বাধ্য হলো! মেয়েটা জানে, এই হাত ধরার মানে কী। কিন্তু, সে অনড়। শেষবারের মত হয়তো মেয়েটার মুখের দিকে একবার তাকালো সে! ছেলেটার চোখে তখন অঝোর শ্রাবণ! সে ভেবেছিল, ছেলেটা হয়তো তার চোখের দিকে একবার তাকালে তা আর উপেক্ষা করতে পারবেনা। চলে যেতে পারবেনা তাকে ছেড়ে। কিন্তু, মেয়েটা ছেলেটার থেকে হাত ছাড়িয়ে নিয়ে ট্রেনের দিকে পা বাড়ালো। ছেলেটা আর সে দিকে তাকিয়ে থাকার সাহস পেলো না। পিছন ফিরে ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে কাঁদতে শুরু করল। ওদিকে মেয়েটা উঠে গেল তার নিজস্ব কামরায়। হঠাৎ তীব্র শব্দে ট্রেনের হুইসেল বেজে উঠলো। আর ছেলেটার ভেতরে পৃথিবী ভাঙার। আস্তে আস্তে ট্রেনটা স্টেশন ত্যাগ করতে শুরু করল। ছেলেটার কান্নার মাত্রা তীব্র থেকে আরো তীব্রতর হচ্ছে। ট্রেনের শব্দে সেই কান্নার আওয়াজ কেউ শুনতে পাচ্ছেনা। আমিও না। শুধু দুরের এই টং দোকানের ভাঙা টেবিলে বসে তা দেখতে পাচ্ছি। ট্রেন প্লাটফর্ম ছেড়ে চলে গেলে, ছেলেটা একবার সেদিকে তাকিয়ে দীর্ঘশ্বাস ফেলল। এখন আর সে কাঁদছে না। চোখের কোণে জমে থাকা জলটুকু মুছে নিয়ে, ধীরে ধীরে প্লাটফর্মের গেটের দিকে এগিয়ে গেল সে। যেতে যেতে মিশে গেল ঘরে ফেরা মানুষের ভিড়ে। চোখের সামনে এমন দৃশ্য দেখার পর, আমার চোখ দিয়ে দুফোঁটা পানি গড়িয়ে পরলো, আমার চায়ের নেশাটা উঠে গেল। কাপের অবিশিষ্ট চা টুকু ফেলে দিলাম। একটা সিগারেট নিয়ে খেতে শুরু করলাম! এই দৃশ্য দেখে! তারপর হাঁটা ধরলাম রেল লাইনের স্লিপার ধরে! এই ভুল শহরে আরেকটা ভুল প্রেমের করুণ পরণতিতে তখন একটা কথাই বারবার মনে পড়ছিল। এ শহর শুধু চোখ ভিজিয়েই দিতে পারে, মুছে দিতে নয়। ® এই শহরে সবাই ভালোবাসি বলতে জানে! কিন্তুু ভালোবাসার প্রিয় মানুষ টা কে আগলে রাখতে জানে নাহ! #তারিখ : ২৩-৩-২০২১ #গল্পঃ_শেষ_দেখা #লেখাঃ_হৃদয় ইসলাম 🏩 হাফেজ জিয়াউর রহমান ডিগ্রি কলেজ. একাদশ বর্ষ, শ্যামগজ্ঞ! # ছবি স্থানঃ_শ্যামগজ্ঞ _রেলওয়ে স্টেশন