সাহিত্য
আমি কৃষকের সন্তান
Posted on 26 Mar, 2021

সেই খুনসুটি, সকলের আদর,আর ভালোবাসা আজকেও আমায় সেই দিনের কাছে বার বার ফিরে যেতে মন চায়। সেই গ্রামের আঁকাবাঁকা রাস্তা ধরে হাটা,বর্ষায় নৌকা ঘুরা, আর আষাড় মাসে বৃষ্টির ধাওয়া আজও আমার মনে দাগ কাটে। আমি বলতেছিলাম আমি কৃষকের সন্তান। আমি যখন ছোট ছিলাম তখন আমাকে নিয়ে সবাই আনন্দে মেতে উঠত কেন জানেন? আমি পরিবারের সবথেকে ছোট সন্তান। আমি বলে রাখি আমরা ৫ ভাই, ২ বোন তার মাঝে আমি সবার ছোট তাহলে বুঝে নিতে হবে আমার কত আদর ছিল পরিবারে? আমাকে আজকে অনেক কিছু ফিরে মন চায় কিন্তু সবকিছুতো আর সম্ভব না। ধরুন সেই ছোট বেলায় আমরা সাইকেলের টায়ার চালাতাম একে অন্যের সাথে প্রতিযোগিতা করতাম,তারপর পুতুল দিয়ে বিয়ে দেওয়া, মাটির মাঝে খনন করে মেশিন বানিয়ে পানি দেওয়া।"মা" আমাকে সাজিয়ে দিত স্কুলে যাওয়ার জন্য বলে রাখি আমাদের গ্রামে কোন স্কুল ছিল না তাই অন্য গ্রামে যেতে হত। এই স্কুলে যাওয়া নিয়েও জীবনে ঘটে যাওয়া একটা গল্প আছে যা আজও আমাকে অনেক আনন্দ দেয়। সেই কথায় একটু আসা যাক,আমি আমার চাচাত ভাই হাসান ও আমার থেকে বয়সে ১বছরের বড় তারপর ও আমাদের একসাথে উঠা বসা একসাথে স্কুলে পড়া সবকিছু তাই আমারা স্কুলে ও একসাথে যেতাম,আমাদের গ্রাম থেকে আমারা দল বেঁধে ২০/২৫জনের একটা দল আমরা স্কুলে যাইতাম।সেই সময় হাসানের বাবা অর্থাৎ আমার ছোট চাচার একটা মুদি দোকান ছিল। সেই দোকানে গ্রামের সকল মানুষের আড্ডা ছিল।আমরা ঘন্টার পর ঘন্টা সেই দোকানে আড্ডা দিতাম।মাঝেমাঝে "মা" লাঠি নিয়ে উত্তম মাধ্যম দিত।আশাকরি বুঝতে পেরেছেন কোন কথা বলেছি।যাইহোক আসল কথায় আসা যাক, আমরা যখন স্কুলে যেতাম আমাদের সাথে আমাদের ১ সিনিয়র কাকা ও তার বন্ধু আমাদের সম্পর্কে চাচাত ভাই হয় তারাও যেত। তাদের সাথে আমাদের সম্পর্ক ছিল খুব ভাল আমরা স্কুলে না গিয়ে আমরা আমাদের বাড়ি আর স্কুলের অদূরে একটা ভয়ংকর বাগান ছিল যা দিনের বেলায় মানুষ একা যেতে ভয় পেত আমরা স্কুল ফাঁকি দিয়ে সেই বাগানে গিলে চাচাত ভায়ের দোকানের মুড়ি,চানাচুর নিয়ে ঝাল মুড়ি নিয়ে বানিয়ে খেতাম। আর যখন স্কুল ছুটি দিত তখন সবার সাথে আমরা ও তাদের সাথে বাড়ি ফিরে আসতাম।এমনিভাবে আমরা আমাদের দিন অতিবাহিত করতেছিলাম।এমনিভাবে আমাদের পরীক্ষার সময় ও আমরা একই কাজ করতেছিলাম।অবশেষে ফলাফল শুণ্য ছিল কারণ আমরাতো পরীক্ষাই দেয়নি। আমাদের স্কুলে যাওয়ার দৃশ্যগুলো আজোও আমার চোখের কোনে ভাসে।আমরা যখন দল বেধে স্কুলে যেতাম সেটা ছিল বিলের মধ্য দিয়ে যেতাম।জমির আইল দিয়ে আমরা হেটে যেতাম কোন জমির মাঝে মটর সুটি,আবার কোন জমির মাঝে, শরিষা ফুল,কোন জমিতে আঁখ তার মাঝে আমরা আঁকাবাঁকা পথ দিয়ে আমরা হেটে যেতাম আমাদের স্কুলে।সেই দিনগুলো আমার চোখে আজোও ভাসে যা কখনো ভূলতে পারব না।